• শনিবার, ০৪ ডিসেম্বর ২০২১, ০৮:০৯ পূর্বাহ্ন
  • Bengali Bengali English English

পার্লামেন্টে মাওলানা আজহারীকে নিয়ে কী আলোচনা হল?

অন্যায়ের প্রতিবাদ / ৪০ বার দেখা হয়েছে
প্রকাশকাল ► বৃহস্পতিবার, ৪ নভেম্বর, ২০২১

মাওলানা মিজানুর রহমান আজহারীকে যুক্তরাজ্য সফরের ভিসা দিয়েও পরে ভিসা বাতিল করে যুক্তরাজ্যে প্রবেশ করতে দেয়নি দেশটির হোম অফিস। এদিকে মিজানুর রহমান আজহারীর যুক্তরাজ্যেকে ঢুকতে বাঁধা দেওয়ার পর এবার ব্রিটেনে পুরোপুরি নিষিদ্ধ করতে সংসদে প্রস্তাব উত্থাপন করা হয়েছে।

মঙ্গলবার ব্রিটেনের পার্লামেন্টে ব্রিটিশ এমপি ব্ল্যাক ম্যান মাওলানা মিজানুর রহমান আজহারীকে নিয়ে তার বক্তব্য তুলে ধরেন। ব্ল্যাক ম্যান তার বক্তব্যে বলেছেন, বাংলাদেশে ঘৃণা ছড়ানো ইসলামিক বক্তা মাওলানা আজহারীকে লন্ডনে রয়েল রিজেন্সি হলে ইসলামী কনফারেন্সে আমন্ত্রণ জানানো হয়েছিলো, তিনি যুক্তরাজ্যে আসার জন্য কাতারে এসে আটকে আছেন।

এরকম ঘৃণা ছড়ানো ব্যক্তি যে হিন্দু ও ইহুদি ধর্মের প্রতি ঘৃণা ছড়ায় তাকে ব্রিটেনে ঢুকতে দেয়া ঠিক হবে না। মিজানুর রহমান আজহারী ব্রিটেনে ঢুকলে তার বক্তব্যের মাধ্যমে এখানকার শান্তি প্রিয় বৃহৎ মুসলিম জনগোষ্ঠী ভুল তথ্য পেয়ে বিভ্রান্ত হতে পারে। এমনকি সে অনলাইনেও এই ধরণের ঘৃণা ছড়াতে পারে।

পার্লামেন্টে ব্ল্যাক ম্যান মাওলানা মিজানুর রহমানের ভিসা বাতিল বহালের আলোচনার জন্য হোম সেক্রেটারি প্রীতি প্যাটেলের প্রতি আহবান জানান।

তার এই বক্তব্যে প্রতি সমর্থন জানিয়ে পার্লামেন্ট লিডার স্যার জ্যাকব রিস বলেন, বিষয়টি গুরুত্বপূর্ণ, এই দেশে ঘৃণা ছড়ানো একচি মারাত্মক অপরাধ। ঘৃণা ছড়ায় এমন কাউকে আমরা এই দেশে ঢুকতে দিতে পারি না। ঘৃণা ছড়ানোর বিরুদ্ধে আমাদের একটি অবস্থান রয়েছে সেটার ভিত্তিতে হোম সেক্রেটারির কাছে বিষয়টি দেয়া হলো।

এদিকে ব্রিটেনের পার্লামেন্টে ব্রিটিশ এমপি ব্ল্যাক ম্যানের বক্তব্যের কড়া জবাব দিয়েছেন মাওলানা মিজানুর রহমান আজহারী। নিজের ভেরিফাইড ফেসবুক পেজে মাওলানা আজহারী তার বক্তব্যের সমালোচনা করে বলেন, ‘ইসলাম শান্তির ধর্ম। আমরা শান্তির বাণীবাহক’।

মঙ্গলবার ইউকে পার্লামেন্টের হাউজ অব কমনস-এ গ্রেটার লন্ডনের নির্বাচনী এলাকা “হারো ইস্ট” এর কনজার্ভেটিভ পার্টিও এমপি “বব ব্ল্যাক ম্যান” আমাকে হেইট প্রিচার আখ্যা দিতে গিয়ে কিছু বিভ্রান্তিকর তথ্য শেয়ার করেছেন।

 


ফেসবুক পোস্টে আজহারী লেখেন, ব্রিটিশ এমপি তার বক্তব্যে কিছু অসত্য কথা বলেছেন। তিনি বলেছেন আমাকে বাংলাদেশে নিষিদ্ধ করা হয়েছে এবং আমি নাকি দেশ থেকে পালিয়ে গেছি। আমি তার এই মিথ্যাচারের তীব্র নিন্দা জানাচ্ছি। বাংলাদেশ সরকার আমাকে নিষিদ্ধ করেছে তার কোন প্রমাণ কি তিনি হাজির করতে পারবেন? না, পারবেন না। সরকার তো শত শত পুলিশ দিয়ে আমার প্রোগ্রামকে সফল করেছে। সরকারের এমপি মন্ত্রীরা আমার বিভিন্ন প্রোগ্রামে অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকেছেন। প্রশাসন ও আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সবাই আমার প্রোগ্রাম বাস্তবায়নে সর্বাত্মক সহযোগিতা করেছেন। তাদের সকলের প্রতি আমি আন্তরিকভাবে কৃতজ্ঞ।

মিজানুর রহমান আজহারী সেখানে আরও লেখেন, তাহলে আমি ২০২০ সালের বাকী প্রোগ্রামগুলো স্থগিত করে মালয়েশিয়া চলে আসলাম কেন? সেটা আমি আগেও বলেছি। আর তা হলো— আমাকে নিয়ে মাত্রাতিরিক্ত মাতামাতি, হইচই, প্রোগ্রামস্থলে ধারণ ক্ষমতার বাইরে উপস্থিতি, বেসামাল ক্রাউড এবং কিছু আল্লাহর বান্দার প্রতিহিংসাপরায়ণতা। এসব যখন ক্রমান্বয়ে বেড়েই চলছিল তখন কিছু শুভাকাঙ্খীদের পরামর্শে সকল প্রোগ্রাম স্থগিত করে পুনরায় পিএইচডি গবেষণার কাজে আমার বিশ্ববিদ্যালয়ে তথা মালয়েশিয়ায় সাময়িকভাবে ফিরে আসি।

বাংলাদেশ আমার দেশ। আমি এদেশের সন্তান। করোনার কারণে গতবছর দেশে যেতে পারিনি। ইতিমধ্যে আমি ফ্যাকাল্টিতে পিএইচডি থিসিস সাবমিট করেছি। পিএইচডি ডিগ্রী অর্জন শেষে, শীঘ্রই আমি দেশে ফিরব ইনশাআল্লাহ।


এই বিভাগের আরো সংবাদ

আমাদের ফেসবুক পেজ

Facebook Pagelike Widget